Like Us Like Us Facebook Subscribe Subscribe us YouTube Whatsapp Share us Whatsapp Query Send your queries

কুড়ি মাস পর স্কুল খোলার প্রথম দিনেই বিক্ষোভ জি ডি বিড়লায় 

কুড়ি মাস পর স্কুল খোলার প্রথম দিনেই বিক্ষোভ জি ডি বিড়লায় 

কুড়ি মাস পর স্কুল খোলার প্রথম দিনেই বিক্ষোভ জি ডি বিড়লায়

কুড়ি মাস পর খোলার প্রথম দিনই জি ডি বিড়লা স্কুলে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন শিক্ষক-অশিক্ষক কর্মীরা। হাতে ব্যানার, পোস্টার। তাতে লেখা, স্কুলের ফিজ় না পাওয়ার অজুহাত দেখিয়ে আমাদের পাওনা টাকা আটকানো যাবে না। আমরা সুবিচার চাই। কোভিডের সময় চলে গেছে চাকরি। অথচ পাননি প্রাপ্য বকেয়া টাকাও। সে কারণেই বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন শিক্ষক-অশিক্ষক কর্মীরা।

 

বিক্ষোভরত স্কুলেরই এক প্রাক্তন শিক্ষিকার কথায়, অতিমারি পরিস্থিতিতে কোনও কারণ না দেখিয়ে রাতারাতি নোটিস দিয়ে আমাদের বরখাস্ত করা হয়েছিল। তারপর আমরা চিঠি হাতে পাই। আমি ক্লাস করাচ্ছিলাম। তখনই হাতে টার্মিনেশন লেটার পাই।

বিক্ষোভরত কর্মীদের বক্তব্য, আমাদের প্রাপ্য যা টাকা দিয়ে দেওয়া হোক। প্রায় দেড় বছর পর স্কুল খুললো বাংলায়। কিন্তু রাজ্যের অনান্য স্কুলগুলোর মতো এদিন সকালে জি ডি বিড়লার চিত্রটা ধরা পড়লো অন্যরকম। এখনও পর্যন্ত স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

 

কোভিড আবহে ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে চাকরি হারা হন অশোকা হল গ্রুপ অফ স্কুলসের ১১০ জন। যেখানে শিক্ষাকর্মী, শিক্ষক, অশিক্ষক কর্মী থেকে প্রত্যেকে ছিলেন। ২০-৩০ বছর যাঁরা কাজ করেছেন, তাঁদেরও বরখাস্ত করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, তাঁরা না পেয়েছেন পাওনা টাকা, না পেয়েছেন নোটিস পিরিয়ড। ইতিমধ্যেই কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন তাঁরা। মঙ্গলবার জি ডি বিড়লায় পুনরায় কাজ ও বেতনের দাবিতে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন সেখানকার শিক্ষক, অশিক্ষকর্মীরা।

 

প্রায় দুবছর ধরে স্কুল বন্ধ থাকলেও এত দিন অনলাইনে ক্লাস হচ্ছিল। এ বার সশরীরে ক্লাস করতে পারবে পড়ুয়ারা। অতিমারির প্রকোপ কিছুটা কমতেই ফের স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য। কিন্তু স্কুল খোলার জন্য যে ধরনের প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল, সেগুলি কতটা কার্যকর হয়েছে, তা বোঝা যাবে স্কুল খোলার পরেই।

 

কলকাতা থেকে বার্তা ৩৬৫-র নিউজ টিমের প্রতিবেদন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *